আবিপ্রবিতে ১১ দফা দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

প্রকাশিতঃ ৪:৫৫ অপরাহ্ণ, রবি, ৩ নভেম্বর ১৯

আবিপ্রবি প্রতিনিধি: আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (আবিপ্রবি) ভারপ্রাপ্ত ভিসির পদত্যাগ সহ ১১ দফা দাবিতে আন্দোলন করছে শিক্ষার্থীরা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষা সহ সকল প্রাতিষ্ঠানিক কাজ স্থগিত বলে তারা ঘোষণা দিয়েছেন।

শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মচারীদের অভিযোগ, অবৈধভাবে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে বসে পুরো বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে স্বেচ্ছাচারীভাবে পরিচালনা করছেন ড. কাজী শরিফুল আলম।

এছাড়া ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য ড. কাজী শরিফুল আলমের নানা অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযোগ করেছেন বেশ কয়েকজন সাবেক শিক্ষক-শিক্ষার্থী। আহছানউল্লাহ্ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়কে পারিবারিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বলেও উল্লেখ করেন তারা।

এর আগে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়ে ভারপ্রাপ্ত ভিসি ড. কাজী শরিফুল আলমের পদত্যাগই ১১ দফার ১ম সাফল্য অর্জিত হয় বলে মনে করেন।

ভিসি ড.কাজী শরিফুলের কর্মকান্ডকে চরম স্বেচ্ছাচারিতা দাবি করে আন্দোলনকারি শিক্ষার্থীরা বলেন, বিগত বছরগুলোতে অবৈধ ভারপ্রাপ্ত ভিসির অধীনে হঠকারিতা, দূর্নীতি, ক্যাম্পাসে স্বেচ্ছাচারিতার পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। যেসকল শিক্ষকবৃন্দ অবৈধ কর্মকান্ডে অসম্মতি জানিয়েছেন তাদেরকে অসম্মানজনক ভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে।

তারা আরও বলেন, পিতা মাতার কষ্টে উপার্জিত অর্থ বিশ্ববিদ্যালয়ের অবৈধ কর্মকান্ডে জলাঞ্জলি না দেয়ার প্রচেষ্টা থেকেই আমরা ১১ দফা দাবি নিয়ে আমাদের আন্দোলন। আমাদের সাথে প্রাক্তন সকল শিক্ষার্থীরা একাগ্রতা প্রকাশ করছে এবং দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সকল শিক্ষার্থী শান্তি পূর্ন ও নিয়মতান্ত্রিক ভাবেই আন্দোলন চালিয়ে যাব।

শিক্ষার্থীদের ১১ দফা দাবি

পর্নগ্রাফিতে অভিযুক্ত ভিসি পুত্রের বিজনেস অ্যাডমিনিষ্ট্রেশন ফ্যাকাল্টি থেকে অপসারণ, ড. কাজী শরিফুল আলম ভারপ্রাপ্ত ভিসি, ট্রেজার থাকাকালীন সকল প্রাতিষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত বাতিল ঘোষণা, অবৈধ ভারপ্রাপ্ত ভিসি থাকাকালীন যে ১০ জন সিনিয়র শিক্ষক কে বহিষ্কার করা হয়েছে তাদের স্ব-সম্মানে ফিরিয়ে আনা, প্রতি সেমিস্টারে যে ফি ক্ষার্থীরা দিচ্ছে তার হিসেব অথরিটি কে অবগত করা, ক্লীয়ারেন্সে টাকা প্রদানের নতুন নিয়ম বাতিল করে ক্যারি, ক্লীয়ারেন্স পরীক্ষায় জিপিএ ৩.০০করা, বিশ্ববিদ্যালয়ে আল্যামনাই অ্যাসোসিয়েশন গঠনে সম্মতি প্রদান করা, সকল শিক্ষার্থীদের পরিপূর্ণ সুযোগ সুবিধা প্রদান (ল্যাব ও ক্লাসের পারিপার্শ্বিক সুবিধা, ওয়াশরুমের বেহাল দশা, নিরাপত্তার বেহাল দশা, ক্যান্টিনের খাবার ও পরিচ্ছন্নতার মান, যাতায়াত ব্যবস্থা, গবেষণা) মান বৃদ্ধি করা, একটি রাজনৈতিক ছাত্র গঠনের অনুমতি দেওয়া যার প্রতিনিধিত্ব করবে বর্তমান শিক্ষার্থীবৃন্দ, ভর্তি সহ সকল পরীক্ষা বর্জন করে নতুন একাডেমিক ক্যালেন্ডার বর্তমান সেমিস্টার রুটিনের আদলে বিজ্ঞপ্তি আকারে প্রকাশ করা, সাংস্কৃতিক ও প্রগতিশীল কর্মকান্ডকে সহজ ও সাবলীল করার লক্ষ্যে সকল সাংস্কৃতিক আয়োজন (পূজা, ফেস্ট, বিজয় দিবস, বর্ষবরণ) ক্যাম্পাসে করার অযাচিত শর্তহীন অনুমতি প্রদান, পরবর্তীতে এই আন্দোলন সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে তদন্ত প্যানেল গঠন না করা।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ