‘আমি কারো সাথে ফোনে কথা বলবো না’: জবি উপাচার্য

প্রকাশিতঃ ৬:৫০ অপরাহ্ণ, সোম, ২৫ নভেম্বর ১৯

জবি প্রতিনিধি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন বিভাগের এক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় চেয়ারম্যান জুনায়েদ হালিমের স্বেচ্ছাচারিতার বিষয়ে উপাচার্য ড. মীজানুর রহমানের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘আমি কারো সাথে টেলিফোনে কথা বলবো না। তুমি আগামীকাল (মঙ্গলবার) আমার অফিসে আসো। তখন কথা বলবো।

জানা যায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের সেমিষ্টার ফাইনাল পরীক্ষা আবার শুরু হলেও পরীক্ষায় বসতে পারছেন না বিভাগের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হাসান মিশু। মিশুর পরীক্ষা না নিতে এখনো অনড় অবস্থানে আছেন বিভাগের চেয়ারম্যান জুনায়েদ হালিম। এদিকে মিশুর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রক্টরিয়াল তদন্ত প্রতিবেদনে নির্দোষ প্রমানিত হলেও বিভাগীয় চেয়ারম্যানের আবেদনের প্রেক্ষিতে একটি রিভিউ কমিটি গঠন করা হয়েছে। ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সেলিমকে আগামী ৫ কার্য দিবসের মধ্যে একটি রিভিউ প্রতিবেদন জমা দিতে আদেশ দেয়া হয়েছে বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে।

জানা যায়, গত ২২ মে ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হাসান সোহান ও মাহমুদুল হাসান মিশুর নামে ‘ধারাবাহিক অপরাধমূলক কর্মকান্ড’ এর অভিযোগ তুলে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে আবেদন করেন বিভাগের চেয়ারম্যান জুনায়েদ হালিম। এরপর গত ০৩ সেপ্টেম্বর মাহমুদুল হাসান সোহান ও মাহমুদুল হাসান মিশুকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এরপর বাদী, বিবাদী ও সাক্ষীদের ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন সহকারী প্রক্টর শিল্পী রানী সাহা ও মো. মহিউদ্দিন। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে মাহমুদুল হাসান সোহানকে সাময়িক বহিষ্কার ও মাহমুদুল হাসান মিশুর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তার একাডেমিক কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবে করার সুপারিশ করা হয়।

মিশু অভিযোগ করে বলেন, তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেয়ার আগে থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের কোন সিদ্ধান্ত তোয়াক্কা না করেই তাদেরকে কোন ক্লাস, পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে দেয়নি বিভাগের চেয়ারম্যান। এবং মাহমুদুল হাসান মিশুর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে কোন প্রকার শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলেও গত ১৭ নভেম্বর অনুষ্ঠিত সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষায় বসতে দেয়া হয়নি। পরীক্ষার হলে থেকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়া হয়। এবং ওই শিক্ষার্থীকে পরবর্তীতে পুলিশে সোপর্দ করা ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সার্টিফিকেট নিয়ে বের হতে না দেয়ার হুমকি দেন জুনায়েদ হালিম।

এবিষয়ে গত ২০ নভেম্বর বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে ‘জবিতে চেয়ারম্যানের স্বেচ্ছাচারিতায় শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন হুমকির মুখে’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের সকল একাডেমিক কার্যক্রম স্থগিত করে দেন চেয়ারম্যান।

এবিষয়ে জানতে চাইলে ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন বিভাগের চেয়ারম্যান জুনায়েদ হালিম বলেন, মিশুর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার কোন সুযোগ নাই। আমি তার বিষয়ে সম্মানজনক কোন সুরাহা পাইনি। আমি বিভাগের চেয়ারম্যান হিসেবে উপাচার্যের কমান্ডের বাইরে যেতে পারি না। পূর্বে উপাচার্যের অনুমতি থাকা সত্বেও আপনি পরিক্ষা দিতে দেননি কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি উপাচার্যের কথা মতই তার পরীক্ষা নেইনি। এসময় তিনি বলেন, এটা এমন কোন বিষয় না যে সাংবাদিকদের ‘কচলাকচলি’ করতে হবে।

এবিষয়ে প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল বলেন, আমরা আজ (সোমবার) উপাচার্যের কাছে ৫৭ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছি। আমাদের প্রতিবেদনে মিশু নির্দোষ ছিলো। এখন এবিষয়ে রিভিউ কমিটি হয়েছে। বিষয়টা উপাচার্য দেখছেন।

রিভিউ কমিটির সদস্য ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সেলিমের কাছে এব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে তিনি বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, আমি এই ব্যাপারে কিছুই জানি না। মাত্র তোমার কাছে শুনলাম। আমি আরও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একটি প্রজেক্টের জন্য তিন দিনের ছুটি নিয়েছি

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ