এন্টিবায়োটিক ওষুধের অকার্যকারীতা এবং কোয়াক কান্ড!

প্রকাশিতঃ ৪:২৭ অপরাহ্ণ, সোম, ২৫ নভেম্বর ১৯

ডা. মাহমুদুল হাসান খান :

একজন কোয়াক (নামের আগে ডাক্তার, তাই বলে উনি ডাক্তার নন) কর্তৃক ১০ই আগস্টে Azithromycin এন্টিবায়োটিক ৭ দিনের জন্য প্রেসক্রাইব করে৷ সমস্যা লিখছে Tonsillitis!!!

৪ দিন পর ১৪ আগস্ট ঐ একই রোগীকে পুনঃরায় Moxifloxacin এন্টিবায়োটিক ১৪ দিনের জন্য দেয়া হয়, তাও দুই বেলা ভাগ করে৷ আমার জ্ঞানে Moxifloxacin দুই বেলা ভাগ করে দেয়ার কারন জানা নাই৷

ঠিক তার ৬ দিন পর ২০শে আগস্ট Flucloxacin চার বেলা করে ৭ দিনের জন্য দেয়া হয়৷

যথাযথ culture পরীক্ষার পর ফলাফল না দেখে ১০ দিনের ভিতরে তিনবার এন্টিবায়োটিক পরিবর্তন করে কেবল রোগীকেই বিপদে ফেলা নয়, এন্টিবায়োটিক প্রতিরোধী জীবানুর প্রসারও ঘটাচ্ছে এ কোয়াকরা৷

No photo description available.

দুই টাকা লাভের আশায় আর রোগীকে স্বল্প সময়ে আরোগ্য করার অবৈজ্ঞানিক চিকিৎসাপন্থা কেবল কোয়াক দ্বারাই সম্ভব৷

এন্টিবোয়োটিক প্রতিরোধের সামাজিক বিস্তার কখনোই বন্ধ হবে না যদি তা কোয়াকদের হাত দিয়ে বিক্রি বন্ধ না হয়৷

আপনার শরীর আপনার জন্য মহামূল্যবান৷ কিছু টাকা বাচাঁনোর আশায় কোয়াক নামক হাতুরে ডাক্তারের পরামর্শ মোতাবেক এন্টিবায়োটিক খাওয়া বন্ধ করুন৷ তাতে নিজে বাচুঁন, এন্টিবায়োটিককেও বাচঁতে দিন৷

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ