করোনায় ইতালিতে একদিনে রেকর্ড ৯৬৯ জনের মৃত্যু

প্রকাশিতঃ ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ, শনি, ২৮ মার্চ ২০

নিউজ ডেস্ক : ইতালিতে করোনাভাইরাসে একদিনে রেকর্ড ৯৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ইতালিতে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯,১৮৪ জনে।

ইউরোপের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ দেশ ইতালিতে প্রায় সবকিছু বন্ধ রয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে মানুষকে ঘরে থাকতে বলা হয়েছে। খবর : এএফপি।

তবে দেশটিতে সংক্রমণের হার নিম্নমুখী হওয়ার প্রবণতা অব্যাহত রেখেছে, নাগরিক সুরক্ষা সংস্থা ইটালিতে প্রায় ৮৬,৫০০ টি নিশ্চিত কেস হিসাবে রিপোর্ট করেছে – এটি আগের দিনের তুলনায় ৮.৮ শতাংশ থেকে কমে ৭.৮ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

এটি মহামারীটি শুরু হওয়ার পর থেকে রেকর্ড হওয়া মামলার ক্ষেত্রে সবচেয়ে কম বৃদ্ধির এই চিত্র দেখা গেল।

যদিও স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলছেন যে দেশে করোনাভাইরাস মামলার আসল সংখ্যা রেকর্ডকৃত, ৮৬,৮৬৯৮ এর চেয়ে অনেক বেশি।

জরুরি অবস্থার জন্য জাতীয় কমিশনার ডোমেনিকো আরকুরি বলেছেন, জরুরি চিকিৎসা ও স্যানিটারি সরবরাহের সরবরাহের গতি বাড়ানোর জন্য সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হবে।

শুক্রবার ইতালির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল যে চলাফেরা এবং স্বাভাবিক কার্যক্রমের ওপর নিষেধাজ্ঞা তেশরা এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস ঘেব্রেয়েসাস কিছুদিন আগে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন যে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষা উপকরণের ‘বৈশ্বিক ঘাটতি’ দেখা দিতে পারে।

যা হবে জীবন বাঁচানোর সক্ষমতার ক্ষেত্রে ‘সবচেয়ে ভয়াবহ হুমকি’গুলোর একটি।

ইতালির উত্তরাঞ্চলীয় এলাকা লোমবার্দিতে, যেটি দেশটির সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা, এই লোমবার্দিতে কোভিড-১৯ এ মৃত্যুর সংখ্যা ব্যাপক হারে বেড়েছে।

যদিও বৃহস্পতিবার মৃত্যুর সংখ্যা আগেরদিনের চেয়ে কমে যাওয়ায় আশা করা হচ্ছিল যে ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে আসা শুরু হয়েছে।

ইতালিতে নতুন করে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ৫,৯৫৯ জনের মধ্যে।

দেশটির অপেক্ষাকৃত দরিদ্র দক্ষিণাঞ্চলীয় এলাকায় ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় আশঙ্কা আরও বাড়ছে।

নেপলসের কাছের বৃহস্পতিবার ক্যাম্পানিয়া অঞ্চলের প্রেসিডেন্ট ভিনসেনজো ডে লুকা বলেন কেন্দ্রীয় সরকার ভেন্টিলেটরসহ গুরুত্বপূর্ণ জীবন রক্ষাকারী উপাদান সরবরাহ করার আশ্বাস দিলেও তারা এখনও তা দেয়নি।

তিনি জানান, “দক্ষিণাঞ্চলের পরিস্থিতি লোমবার্দির মত হতে পারে বলে এই মুহূর্তে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।”

সেদিনই ইতালির প্রেসিডেন্ট গুইসেপ্পে কন্টে মন্তব্য করেন যে, পুরো ইউরোপই অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যে দিয়ে যেতে পারে।

দ্বিতীয় দফায় ইতালির অর্থনীতিতে আড়াই হাজার কোটি ইউরো তহবিল ঘোষণা করেন তিনি।

ইতালির পরিস্থিতি এখন এমন হয়েছে যে, প্রতিদিনই যেন একটি গ্রামের লোকসংখ্যার সমান মানুষ মারা যাচ্ছে সেখানে।

গত ২৪ ঘন্টায় শুধু লোমবার্দি অঞ্চলেই ৫৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে আশার আলো দেখা প্রায় অসম্ভব হলেও ইতালির গত কয়েকদিনের সংক্রমণের হার কিছুটা হলেও আশাবাদী করছে দেশের মানুষকে। গত কয়েকদিন ধরে সংক্রমণের হার কিছুটা কমের দিকে।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ