করোনা: পেটে ভাত জুটবে কি’

প্রকাশিতঃ ১১:০৩ পূর্বাহ্ণ, শনি, ২৮ মার্চ ২০

মাইদুল মুশফিক : নোভেল করোনা ভাইরাস চিনের উহান শহরে আবির্ভাব। যা ইতোমধ্যে পৃথিবীর ১৯২ এর মতো দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। লাশের মিছিল প্রতিদিনই বড় হচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা একে মহামারি ঘোষণা করেছে। পুরো বিশ্ব আজ ব্যাস্ত নোভেল করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে। লকডাউন হচ্ছে বিশ্বের বহু দেশ। বাংলাদেশও লকডাউনের পথে।

ঠিক সে সময় দু-বেলা ভাত জোগাড় করতে যুদ্ধ করছেন সাধারণ দরিদ্র ও শ্রমজীবী মানুষেরা।

সবকিছু যখন স্থবির! তখন যার সক্ষমতা আছে ১-২ মাসের খাদ্য কিনে মজুদ রাখবে। কিন্তু যারা দিনমজুর তাদের জীবিকা কিভাবে চলবে? কোথা থেকে জুটবে তাদের দু’মুঠো ভাত?

করোনায় প্রতিদিনই আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। গতি রোধের কোন ইচ্ছেই যেন নেই তার। বাংলাদেশে আক্রান্ত সংখ্যা এখন পর্যন্ত ৩৯ জন। এবং দেশে মৃত্যুর সংখ্যা ৫ জন। আগেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এছাড়াও আগামী ২৫-৩১ মার্চ পর্যন্ত সামাজিক দূরত্ব ঘোষণা করা হয়েছে।

এমতাবস্থায় বিপাকে পড়েছে দিনমজুর, শ্রমিক, রিক্সাচালক, জেলেসহ অন্য পেশার সাধারণ দরিদ্র মানুষ। বাহিরে মানুষের কম যাওয়া, বিভিন্ন স্থান বন্ধ হওয়ায় কমে গেছে এসব হকার দিনমজুরদের আয়-রোজগার। অনেকের রোজগার বন্ধের উপক্রম হয়েছে। অথচ প্রতিদিনের রোজগারের উপরে নির্ভর করে তাদের পরিবারের সদস্যদের দুই-বেলা খাবার।

এ অবস্থা চলতে থাকলে কোথা থেকে জুটবে তাদের খাবার তা জানা নেই এসব দরিদ্র মানুষদের।

অপরদিকে এই সুযোগে ঘোড়ের দৌড়ের মতো বেড়ে চলেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণের মূল্য। একটি ব্যাবসায়ী সিন্ডিকেট হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। যা চড়ামূল্যের ‘বাজারে মরার উপর খাড়ার ঘা’। ‘দিন আনে দিন খায়’ এমন মানুষের পক্ষে খাদ্য মজুদ করা তো দূরের কথা, প্রতিদিনের খাদ্য যোগাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

গ্রামের তরমুজের ক্ষেতে কাজ করা দিনমজুররা জানান, এখন তরমুজ বিক্রির সময়। এখন তরমুজ বিক্রির জন্য নিতে না পারলে পুরো বছর না খেয়ে থাকতে হবে।

গ্রামের বাজারে পান বিক্রি করেন আলমাছ মিয়া। তিনি বলেন, ‘আমি অন্য কোন কাম পারিনা। তাই এই পান বেচি। এহন কালকে যদি গ্রামে পান বেচতে না পারি, এই পানডি সব পইচ্চা যাইবে। করোনার জন্য ঘরে বসে থাকলে কি আমার পেটে ভাত জুটবে? আমার সংসার চালাতে খুব কষ্ট হবে, দুনিয়ার কষ্ট হবে।’

লেখক : শিক্ষার্থী, সরকারি তিতুমীর কলেজ, ঢাকা।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ