ক্লাব বিশ্বকাপের শিরোপা লিভারপুলের ঘরে

প্রকাশিতঃ ৮:০৫ পূর্বাহ্ণ, রবি, ২২ ডিসেম্বর ১৯

এক ফিরমিনোতেই যেন ক্লাব বিশ্বকাপের শিরোপা নিজেদের করে নিলো লিভারপুল। সেমিফাইনালের পর ফাইনালেও অন্তিম মুহূর্তে গোল করে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ক্লাব বিশ্বকাপের শিরোপা জেতালেন তিনি লিভারপুলকে।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পর দ্বিতীয় ইংলিশ ক্লাব হিসেবে এই টুর্নামেন্টের শিরোপা জেতার কৃতিত্ব দেখালো ইয়ুর্গেন ক্লপের শিষ্যরা। ২০০৫ সালের ফাইনালে ব্রাজিলের দল সাও পাওলোর বিপক্ষে হেরেছিল লিভারপুল। এবার ব্রাজিলিয়ান চ্যাম্পিয়ন ফ্লামেঙ্গোকে হারিয়েই শিরোপায় চুমু খেলো সালাহ-মানে-ফিরমিনোরা।

শুরুতে প্রতিপক্ষকে চেপে ধরে লিভারপুল। ধীরে ধীরে নিজেদের গুছিয়ে নিয়ে আক্রমণে যায় ফ্লামেঙ্গো। সুযোগ আসে দুই দলের সামনেই, কেউই কাজে লাগাতে পারেনি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ফিরমিনোর শট ফিরে আসে পোস্টে লেগে। ৫৪তম মিনিটে এলিসনের নৈপুণ্যে বেঁচে যায় লিভারপুল। ৭৭তম মিনিটে মোহামেদ সালাহ জালে বল পাঠালেও অফ সাইডের জন্য গোল হয়নি।

অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধে ব্যবধান গড়ে দেন ফিরমিনো। সাদিও মানের কাছ থেকে বল পেয়ে ঠান্ডা মাথায় জালে পাঠান এই ফরোয়ার্ড।

দ্বিতীয়ার্ধে সমতা ফেরানোর দারুণ সুযোগ পেয়ে যান গাব্রিয়েল বারবোসা। আলগা বল কাজে লাগাতে পারেননি ইন্টার মিলান থেকে ধারে খেলতে আসা এই ফরোয়ার্ড। ডি-বক্সের ভেতর থেকেও শট রাখতে পারেননি লক্ষ্যে।

শেষ দিকেও ফ্লামেঙ্গো পেয়েছিল ভালো একটি সুযোগ। কিন্তু কাজে লাগাতে পারেনি। ব্যবধান ধরে রেখে শিরোপা জিতে নেয় ক্লপের শিষ্যরা।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ