গোপালগঞ্জে জাল সনদ দিয়ে বিদ্যালয়ে চাকুরির অভিযোগ

প্রকাশিতঃ ৫:২২ অপরাহ্ণ, শনি, ২১ ডিসেম্বর ১৯

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার বাঁশবাড়ীয়া উজানী কাশালিয়া ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে ভূয়া সনদ নিয়ে গ্রন্থাগারিক পদে নিয়োগের অভিযোগ উঠেছে।
অভিযোগে জানা যায়, ওই বিদ্যালয়ে গত ২৬ নভেম্বর ২০১৬ তারিখে গ্রন্থাগারিক পদে স্বপন কুমার বোস কে নিয়োগ দেয়া হয়। নিয়োগ পাওয়া ওই গ্রন্থাগারিকের অভিজ্ঞতার সনদপত্র ভূয়া বলে অভিযোগ করেন ওই বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য মোঃ ফরিদ আহমেদ তালুকদার। তিনি বলেন, স্বপন কুমার বোস ২০১৬ সালে রয়েল ইউনির্ভাসিটি থেকে মাস্টার্স সাইন্স ইন  লাইব্রেরি ম্যানেজম্যান্ট এন্ড ইনফরম্যাশনস্  সাইন্সে সিজিপিএ (৩.৫৯) নম্বর পেয়ে উত্তীর্ন হয়েছেন। প্রকৃতপক্ষে তার এই সনদপত্র জাল। ওই গ্রন্থাগারিক এই জাল সনদ দিয়েই ১৫ লক্ষ টাকার বিনিময়ে নিয়োগ প্রাপ্ত হন বলে জানান ওই অভিভাবক সদস্য।
অভিযুক্ত স্বপন কুমার বোস মুঠোফোনে অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার কোন কাগজপত্রই ভূয়া নয়।
বাঁশবাড়ীয়া উজানী কাশালিয়া ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাম্মি আক্তার বলেন, একই সময়ে আমিসহ গ্রন্থাগারিক ও বিভিন্ন পদে ৪ জনের নিয়োগ হয়। তার সার্টিফিকেট জাল কিনা আমার জানা নেই।
বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ সিরাজুল হক বলেন, স্বপন কুমার বোসের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ হয়েছে সে বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্তে ভূয়া প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
জেলা শিক্ষা অফিসার খায়রুল আনাম মোঃ আফতাবুর রহমান হেলালী বলেন, অভিযোগ পেয়ে সরেজমিনে তদন্তে গিয়েছি। রয়েল ইউনিভার্সিটিতে প্রত্যয়ন পত্রের বিষয়ে চিঠি লিখবো। প্রত্যয়নপত্রে ভূয়া প্রমাণিত হলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সময় জার্নাল/দুলাল বিশ্বাস

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ