চট্রগ্রামে লাইটার জাহাজ শ্রমিকদের কর্মবিরতি

প্রকাশিতঃ ২:১৭ অপরাহ্ণ, বুধ, ২৭ নভেম্বর ১৯

নিউজ ডেস্ক: ১৫ দফা দাবিতে লাগাতার কর্মবিরতি শুরু করেছেন বাংলাদেশ লাইটারেজ শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্যরা। রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে এ কর্মবিরতি শুরু হয়েছে। তবে চট্টগ্রাম বন্দরের মূল জেটিতে কনটেইনার ও কার্গো হ্যান্ডলিং স্বাভাবিক রয়েছে।

ফলে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে মাদার ভেসেল (বড় জাহাজ) থেকে পণ্য খালাস বন্ধ রাখার পাশাপাশি সারাদেশের নৌপথে লাইটার জাহাজ, কার্গো ট্রলার, বাল্কহেড চলাচল বন্ধ রয়েছে। বন্ধ রয়েছে লাইটার জাহাজ থেকে কর্ণফুলীর বিভিন্ন ঘাটে পণ্য খালাস।

জানা যায়, সারাদেশে ৩ হাজারের বেশি লাইটার জাহাজ পণ্য পরিবহন করে। এর মধ্যে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে বড় জাহাজ থেকে পণ্য খালাস করে কয়েক হাজার লাইটার জাহাজ, বাল্কহেড, কার্গো ট্রলার, অয়েল ট্যাংকার ইত্যাদি।

এদিকে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন (রেজিঃ নম্বর বি ১৭১৬) ১১ দফা দাবিতে ২৮ নভেম্বর সব নদী ও সমুদ্রবন্দরে বিক্ষোভ মিছিল এবং ২৯ নভেম্বর দিনগত রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত লাগাতার কর্মবিরতির ডাক দিয়েছে।

নৌপথে পণ্য পরিবহনে নিয়োজিত লাইটারেজ শ্রমিক ও নৌযান শ্রমিকদের কর্মসূচিতে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে আমদানিকারক, শিল্পকারখানার মালিকদের মধ্যে। এ ধরনের কার্যক্রমে নিত্যপণ্য উৎপাদন ও সরবরাহকাজে বিঘ্ন ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে।

লাইটাজের শ্রমিক ইউনিয়নের সহসভাপতি বশির শেখ জানান, শতভাগ খাদ্য ভাতা, শ্রমিকদের নিয়োগপত্র, সার্ভিস বুক, ভারতগামী জাহাজের নাবিকদের ল্যান্ডিং পাস নিশ্চিতসহ বিভিন্ন দাবিতে এ ধর্মঘট ডাকা হয়েছে।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ