চুরির দায়ে ল্যাম্প পোস্টে বেঁধে যুবককে নির্যাতন, ৯৯৯-এ কল

প্রকাশিতঃ ৯:১২ অপরাহ্ণ, সোম, ২০ জানুয়ারি ২০

ইসাহাক আলী, নাটোর : জেলার বাগাতিপাড়ায় চার্জার চালিত ভ্যান চুরির দায়ে এক যুবককে ল্যাম্প পোস্টের সাথে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। সেই নির্যাতনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

সোমবার (২০ জানুয়ারি) উপজেলার দয়ারামপুর বাজার এলাকায় এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। ৯৯৯ এর মাধ্যমে খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওই যুবককে উদ্ধার করে। নির্যাতিত যুবকের নাম মনিরুল ইসলাম। তিনি উপজেলার মাছিমপুর মহল্লার আব্দুল গাফফারের ছেলে।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, সোমবার সকালে দয়ারামপুর এলাকার মিশ্রিপাড়া গ্রামের মাহাতাব সরদার নামের এক ব্যক্তির জানাজা নামাজের আয়োজন চলছিল। মিশ্রিপাড়া গোরস্থান এলাকায় জানাজা নামাজের কয়েক মিনিটি পূর্বে সেখান থেকে ওই এলাকার আলমগীর হোসেনের চার্জার চালিত ভ্যানগাড়ি চুরি করে নেওয়ার সময় দেখতে পায় স্থানীয়রা। এসময় ভ্যানগাড়িসহ মনিরুল ইসলামকে স্থানীয়রা আটক করে। পরে মনিরুলকে দয়ারামপুর ইউনিয়ন পরিষদের নতুন ভবনের সামনে লাম্পপোস্টের খুঁটির সাথে হাত পা-বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয়। আর সেই নির্যাতনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এদিকে ৯৯৯ এর মাধ্যমে এমন নির্যাতনের খবর পান বাগাতিপাড়া মডেল থানা পুলিশ। খবর পেয়ে পুলিশ যুবককে উদ্ধার করে।

উদ্ধারকারী বাগাতিপাড়া মডেল থানার এসআই তারেকুল ইসলাম জানান, মনিরুলকে ইউনিয়ন পরিষদের নির্মাণাধীন ভবনের কক্ষ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। তবে স্থানীয়রা তাকে সামান্য মারধর করেছে এমন কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, মনিরুলকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে।

এ বিষয়ে দয়ারামপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুর রহমান মিঠু জানান, জানাজা নামাজের সময় ভ্যান চুরির সময় একজনকে স্থানীয়রা আটক করে। পরে থানা পুলিশের মাধ্যমে খবর পেয়ে আটক ব্যক্তিকে ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। তাকে মারধোর বা নির্যাতনের বিষয়ে তিনি কিছু জানতেন না। পরে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি শুনেছেন।

বাগাতিপাড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল মতিন বলেন, ভ্যান চুরির সময় জনতার হাতে আটক মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে চার্জার চালিত ভ্যানের মালিক আলমগীর হোসেনের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে একটি চুরির মামলার প্রস্তুতি চলছে। নির্যাতনের তেমন কোন অভিযোগ তার কাছে নেই। তবে চুরির সময় জনতা সামান্য মারধর করতে পারে, তা হাসপাতালে ভর্তির মতো কিছু না।

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন বাগাতিপাড়া উপজেলা শাখার সভাপতি এ্যাড. সোহেল রানা এ ব্যাপারে বলেন, স্থানীয় সচেতন মানুষের দ্বারা একজন অপরাধীকে আইনে সোপর্দ না করে আইন নিজের হাতে তুলে নিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় যুবককে নির্যাতনের ঘটনা মানবাধিকার লঙ্ঘনের সামিল। আইন সকলের জন্য সমান তাই আইনের প্রতি আমাদের সকলকে শ্রদ্ধাশীল হওয়া দরকার।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ