টাইগারদের লক্ষ পাকিস্তানকে অলআউট করা

প্রকাশিতঃ ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ, শনি, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০

স্পোর্টস ডেস্ক: শুরু হয়েছে বাংলাদেশ-পাকিস্তান মধ্যকার রাওয়ালপিন্ডি টেস্টের দ্বিতীয় দিনের খেলা। প্রথম দিন ২৩৩ রানেই অল আউট হয়ে যায় টসে হারা মুমিনুল হকের দল। তাদের লক্ষ্য এখন পাকিস্তানকেও দ্রুত অল আউট করে দেওয়া।

পাকিস্তানের ইনিংসে দিনের শুরুতেই আঘাত হেনেছে বাংলাদেশ। দলীয় ২ রানেই তুমুল ফর্মে থাকা ওপেনার আবিদ আলিকে উইকেট ছাড়া করেছেন আবু জায়েদ চৌধুরী। এই পেসারকে বাজে শটে খেলতে গিয়ে উইকেটের পেছনে কিপার লিটন দাসের গ্লাভসবন্দি হন আবিদ।

বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে আগে ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে দারুণ নৈপুণ্য দেখান আবিদ। রাওয়ালপিন্ডি ও করাচিতে দু্‌ই টেস্টেই সেঞ্চুরি হাঁকান ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। শূন্য রানে তাকে ফিরিয়ে রাওয়ালপিন্ডি টেস্টের দ্বিতীয় দিনটায় দারুণ শুরু পেল বাংলাদেশ।

আবিদানের বিদায়ের পর তিন নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমেছেন অধিনায়ক আজহার আলি। ওপেনার শান মাসুদের সঙ্গে জুটি গড়বেন তিনি।

পেস অ্যাটাক দিয়ে বোলিং শুরু করেছে বাংলাদেশ। শুরুতেই বোলিংয়ে আনা হয়েছে এবাদত হোসেন ও আবু জায়েদ চৌধুরীকে। তিন বিশেষজ্ঞ পেসারের অপরজন হলেন রুবেল হোসেন। এক বিশেষজ্ঞ স্পিনার তাইজুল ইসলাম।

তাছাড়া প্রয়োজনে অফস্পিন নিয়ে আসবেন মাহমুদউল্লাহ। স্পিন বোলিংয়ে ব্রেক-থ্রু এনে দিতে পারেন অধিনায়ক মুমিনুল হকও। প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে আশানুরূপ ভালো করতে না পারলেও দ্বিতীয় ইনিংসে দল ভালো করতে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত।

“মুমিনুল ভাই, আমি বা রিয়াদ ভাই- আমরা ভালো শুরু পেয়েছিলাম; মিঠুন ভাই ভালো ইনিংস খেলেছে। এই বিশ্বাস এসেছে আমাদের ভেতরে- ভালো করা সম্ভব। এই বিশ্বাস দ্বিতীয় ইনিংসে ধরে রাখতে পারলে পার্টনারশিপও হবে, ব্যক্তিগত স্কোরও বড় হবে। প্রথম ৫-৬ ওভারে মুভমেন্ট ছিল। এ সময় তারা ভালো জায়গায় বল করেছে। এখনো যদি আমরা ধৈর্য রাখি, ভালো ফল আসবে। তবে এমন হয়।”

রাওয়ালপিন্ডি টেস্টের প্রথম ইনিংসে সুবিধা করতে পারেনি সফরকারীরা। দুই ওপেনারের ব্যর্থতার পর মিডল অর্ডারে স্বস্তির আভাস পাওয়া গেলেও বড় সংগ্রহ দাঁড় করাতে পারেনি মুমিনুল হকের দল। আড়াইশোর আগেই গুঁটিয়ে যেতে হয়েছে তাদের।

সর্বোচ্চ ৬৩ রান করেন ছয় নম্বরে নামা মোহাম্মদ মিঠুন। ৪৪ রান করেন তিন নম্বরে নামা নাজমুল হোসেন শান্ত। থিতু হয়ে ফিরেছেন লিটন দাস (৩৩), মুমিনুল (৩০), মাহমুদউল্লাহ (২৫) ও তাইজুল ইসলাম (২৪)।

বাংলাদেশের দলের জন্য বড় ঘাতক হয়ে আসেন পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদি। ৫৩ রানে নেন চারটি উইকেট। দুটি করে উইকেট নেন মোহাম্মদ আব্বাস ও হারিস সোহেল।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ