নৃবিজ্ঞান গবেষণা সহিষ্ণু হতে সাহায্য করে : জবি উপাচার্য

প্রকাশিতঃ ৭:১৭ অপরাহ্ণ, বুধ, ১৬ অক্টোবর ১৯

জবি প্রতিনিধি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের নবীন বরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান এ মন্তব্য করেন।

আজ বুধবার (১৬ অক্টোবর) বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে নৃবিজ্ঞান বিভাগের নবীন বরণ ও বিদায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য বলেন, নৃবিজ্ঞানের গবেষণা মানুষকে সহিষ্ণু করতে সাহায্য করতে পারে। অন্য জাতির লোক কেন সাংস্কৃতিক ও দৈহিক দিক থেকে আলাদা আচরণ করে, নৃবিজ্ঞান তার বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দেয়। যেসব সাংস্কৃতিক রীতিনীতি ও কাজকর্ম আমাদের কাছে ভুল বা অশোভন মনে হতে পারে, সেগুলো হয়ত বিশেষ পরিবেশগত বা সামাজিক অবস্থার জন্য অভিযোজনের ফসল। বাংলাদেশেও এর চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। নৃবিজ্ঞান হচ্ছে মানুষ সম্পর্কিত বিজ্ঞান ও সংস্কৃতির গবেষণা। বিশ্বের সর্বত্র ছড়িয়ে থাকা মানুষের সমাজ-সংস্কৃতি নিয়ে গবেষণা করাই নৃবিজ্ঞানের কাজ। ভিন্ন ভিন্ন সমাজের মানুষ ও তাদের সব রকমের অভিজ্ঞতা নৃবিজ্ঞানীদের গবেষণার বিষয়।

নৃবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. সানজিদা ফারহানার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. ফরিদা আক্তার খানম। নবীন বরণ এবং বিদায় অনুষ্ঠান কমিটির আহবায়ক ছিলেন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব তাসলিমা আতিক। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় চেয়ারম্যান, অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ বিদায়ী এবং নবীন শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ