নেইমারের বিরুদ্ধে ধর্ষণের প্রমাণ পায়নি পুলিশ

প্রকাশিতঃ ৭:২৪ অপরাহ্ণ, মঙ্গল, ৩০ জুলাই ১৯

স্পোর্টস ডেস্ক: ব্রাজিল ফুটবল তারকা নেইমারের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছিলেন স্বদেশী মডেল নাজিলা ত্রিনদেদ। গত মে মাসে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের একটি হোটেলে ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন বলে ওই নারীর অভিযোগ। জুনের শুরুতে ব্রাজিলের সাঁও পাওলো পুলিশের কাছে সেই অভিযোগ দায়ের করেন তিনি। তবে সাঁও পাওলো পুলিশ জানিয়েছে, ধর্ষণের যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ তারা পাননি।

পুলিশ এই মামলাটির কার্যক্রম এখানেই শেষ করছে। সাঁও পাওলো অ্যাটর্নি জেনারেল বলেছেন, যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ না পাওয়ায় মামলার পরিসমাপ্তি ঘটেছে। তবে এই প্রতিবেদন তারা সরকারি প্রসিকিউটর অফিসে পাঠাবেন, তারাই এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন। প্রসিকিউশন প্রতিবেদন মূল্যায়নের জন্য ১৫ দিন সময় পাবেন। এরপর বিচারক চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন।

নেইমার অবশ্য শুরু থেকেই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিলেন। নেইমারের একজন মুখপাত্র এএফপিকে বলেছেন, পুলিশের সিদ্ধান্তের বিষয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করতে পারছেন না।

ধর্ষণের অভিযোগ আনা ওই নারী অভিযোগ করেছিলেন, গত ১৫ মে নেইমার যখন হোটেলে ফিরেন তখন তিনি ‘আপাতদৃষ্টিতে মাতাল’ ছিলেন। হোটেলে এসেই নেইমার কিছু কথা বলে তাকে জড়িয়ে ধরেন। একপর্যায়ে নেইমার জোর তাকে যৌনতায় বাধ্য করেন।

সেই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে নেইমার তখন বলেছিলেন, ওই নারীর সঙ্গে অস্বাভাবিক কিছুই হয়নি। ওই নারী চাঁদাবাজির চেষ্টা করেছে। নেইমারের বাবা এই ঘটনাকে একটি ফাঁদ হিসেবে বর্ণনা করেন।

ইনস্টাগ্রামে নিজের অ্যাকাউন্টে সাত মিনিটের একটি ভিডিওতে অভিযোগের বিষয়ে অবস্থান ব্যাখ্যা করেন নেইমার। পর্তুগিজ ভাষায় ওই ভিডিওতে তিনি বলেন, ‘সেদিন একজন পুরুষ ও নারীর মধ্যে সেই সম্পর্কই হয়েছে যা সাধারণত একটি জুটির মধ্যে চার দেয়ালের ভিতরে হয়ে থাকে। পরদিন এর চেয়ে বেশিকিছু ঘটেনি।’

ভিডিওতে ২৭ বছর বয়সী এই ফুটবলার হোয়াটসঅ্যাপে নিজেদের মধ্যে আদান-প্রদান করা বার্তা সমূহ তুলে ধরেন। ওই নারী তাকে হোয়াটসঅ্যাপে যেসব গোপনীয় আবেদনময়ী ছবি প্রদান করেন সেগুলোও তিনি দেখান ভিডিওতে।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ