বাগেরহাট-৪ আসনের সাংসদ আর নেই

প্রকাশিতঃ ১১:০৩ পূর্বাহ্ণ, শুক্র, ১০ জানুয়ারি ২০

নিউজ ডেস্ক: বাগেরহাট-৪ (মোরেলগঞ্জ-শরণখোলা) আসনের সংসদ সদস্য, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, পাঁচবারের এমপি ও সাবেক মন্ত্রী ডা. মোজাম্মেল হোসেন আর নেই। শুক্রবার রাত পৌনে ১টায় ঢাকা বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)।

তার মৃত্যুর খবর শুক্রবার সকালে বাগেরহাটে পৌঁছলে সর্বত্র শোকের ছায়া নেমে আসে। বর্ষীয়ান এই আওয়ামী লীগ নেতা ও মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুতে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ কামরুজ্জামান টুকু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খান হাবিবুর রহমানসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ শোক জানিয়েছেন। গত ৯ ডিসেম্বর সর্বশেষ তিনি জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে পুনরায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।

১৯৪০ সালের ১ অক্টোবর মোড়েলগঞ্জ উপজেলার কচুবুনিয়া গ্রামের বর্ধিষ্ণু পবিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম হাজী রহমত আলী; মা ময়ফুল বিবি। তিনি একমাত্র পুত্রসন্তান খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর মাহমুদ হোসেনসহ বহুগুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

ডা. মোজাম্মেল হোসেন বাগেরহাটের খুবই জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব। তিনি সংসদ সদস্য হিসেবে পাঁচবার জয়লাভ করেন। ১৯৫৮ সালে তিনি এসএসসি, ১৯৬১ সালে এইচএসসি, ‘৬৪ সালে চিটাগং মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করেন। চিটাগং মেডিকেলে পড়াকালীন তিনি ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন।

১৯৭১ সালে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। ১৯৭৩ সালে মোড়েলগজ্ঞ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। পর পর দুবার তিনি এই পদে নির্বাচিত হন। ১৯৭৯ সালে বর্ষীয়ান এই নেতা বাগেরহাট মহাকুমা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে অদ্যাবধি তিনি এই পদে ছিলেন।

দীর্ঘ ৫০ বছরে বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে অনেক চড়াই-উতরাই পার করে তৃণমূলের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের কাছে ডা. মোজাম্মেল হোসেন এক পরম অভিভাবক হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠেন।

১৯৯১ সালে বাগেরহাট-১ আসন থেকে তিনি জয়লাভ করে প্রথমবার বাংলাদেশ জাতীয় সংদদে বাগেরহাটের প্রতিনিধিত্ব করেন। পরে তিনি সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তার সময়েই বিধবাভাতা, দারিদ্র্য ভাতা, বয়স্কভাতাসহ দেশের সাধারণ মানুষের কল্যাণকর অনেক সুযোগ-সুবিধা প্রদান শুরু হয়।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ