বান্দরবানের ৫টি অপরূপ স্থান

প্রকাশিতঃ ৭:২৩ অপরাহ্ণ, শনি, ২৬ অক্টোবর ১৯

ভ্রমণ ডেস্ক: ভ্রমণ পিয়াসুদের কাছে বান্দরবান একটি অতি পরিচিত নাম। প্রাকৃতিক সৌন্দয্যের লীলাভূমি এই বান্দরবানে প্রকৃতি তার অপরুপ রুপের পসরা মেলে বসে আছে প্রেমীদের জন্য। যদিও দুর্গম এলাকা হওয়ায় অল্প সময়ে খুব বেশি কিছু দেখা যায় না এই পাহাড়ি এলাকায়, তবুও হাতে একটু বাড়তি সময় নিয়েও ঘুরে আসতে পারেন এই চোখ জুড়ানো শহরে।

চলুন জেনে নেই প্রাকৃতির লীলাভূমি বান্দরবানে ঘুরে দেখার মত ৫টি অপরূপ স্থানের খুঁটিনাটি।

রামজাদী মন্দির বা রাম মন্দির

কেউ হাফ প্যান্ট পরা থাকলে সেখানে ঢুকতে পারে না। লুঙ্গি বা ফুল প্যান্ট পরা থাকতে হবে। তবে কেউ চাইলে সেখান থেকে লুঙ্গি ভাড়া নিতে পারে। ভাড়া ২০ টাকা। আর মন্দিরে ঢুকার ভাড়া ১৫ টাকা। (স্বর্ণজাদী বা স্বর্ণ মন্দির আরো একটি সুন্দর স্থান। তবে সেখানে যাবার অনুমতি নেই এখন।)

নীল আঁচল

এই জায়গাটা অদ্ভুত সুন্দর। সূর্য ডোবার আগে সেখানের আকাশ ২ রঙ দেয়। উপরে সাদা, নিচে নীল। তাই এর নাম নীল আঁচল। এই জায়গায় বর্ষা বা শীতকালে বেশি ভালো লাগে। তবে সূর্য ডোবার সময়টাতে এর আসল রুপ বের হয়ে আসে। তাই সন্ধ্যাটা সেখানেই পার করার চেষ্টা করুন। ইচ্ছে করলেই রাতটাও থেকে যেতে পারেন। কটেজ ভাড়া পড়বে ৩০০০ টাকা। ঢুকতে ৫০ টাকা টিকিট।

মেঘলা পার্ক

শহর থেকে ৪ কিলো দূরে একটি পার্ক। এর প্রধান আকর্ষণ ঝুলন্ত ব্রীজ এবং ক্যাবল কার। ভাড়া ঢুকতে ৪০ টাকা, আর ক্যাবলকার এর ৫০ টাকা। সেখানকার কিছু সুন্দর মুহূর্ত আপনার অ্যালবামের শোভা বাড়াতে পারে।

প্রান্তিক লেক

শহর থেকে একটু দূরে একটি শান্ত লেক। অপরূপ প্রকৃতির সাথে ঘনিষ্ঠভাবে মিশে আছে নীল পানি। ঢুকতে খরচ হবে ৫০ টাকা। তবে যাবার সময় কাপড় নিয়ে যাওয়া উচিত। কারন ইচ্ছে করলেই গোসলটা করে নেয়া যায়।

ন্যাশনাল পার্ক
আহামরি কিছু নেই। জঙ্গলে কিছু প্রাণী আছে। খুব বেশি ইচ্ছে না করলে, না ঢুকলেও চলে।

যেভাবে যাবেন: ঢাকা থেকে বান্দরবান অনেকগুলো বাস যায়। হানিফ, সেন্টমার্টিন, শ্যামলি ছাড়াও ট্রেনে চট্টগ্রাম হয়ে বাসে করে যাওয়া যায় বান্দরবান শহরে। রাতের বাসে করে বান্দরবানের উদ্দ্যেশ্যে যাত্রা করলে পরদিন সকাল ৭টার মধ্যে পৌঁছে যায়। রাতে না যেতে চাইলে দিনেও যাওয়া যায়। তবে রাতের জার্নিটাই আরামের। হোটেল আগেই বুক করা যায়। কারো ঠিক করা না থাকলেও সেখানে গেলেই পেয়ে যাবে সাধ্য অনুযায়ী হোটেল। সময়ের উপর ভিত্তি করে ভাড়া পড়বে ৫০০ থেকে ৩০০০ পর্যন্ত।

যেভাবে ঘুরবেন: যেদিন সকালে বান্দরবান যাবেন সেই দিনটাতেই অনেকগুলো জায়গা ঘুরে ফেলা যায়। হোটেল এ ফ্রেশ হয়ে নাস্তাটা সেরে নিন। তারপর বেরিয়ে পড়ুন শহর দেখতে। শহরের আশে পাশে কিছু সুন্দর জায়গা আছে। সেগুলো দেখার জন্য মহেন্দ্রা ভাড়া করতে পারেন। মহেন্দ্রা হলো সি এন জি থেকে আর একটু বড়। ৫-৬ জন বসা যায়। তবে যে কেউ চাইলে সি এন জি নিতে পারে। ভাড়া একই পড়ে। যাওয়ার আগে দরদাম করে নিন। ভাড়া কিছুটা বেশিই চেয়ে থাকে, দরদাম করে কমিয়ে আনুন।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ