রাবির ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিতঃ ৬:৪৭ অপরাহ্ণ, সোম, ২১ অক্টোবর ১৯

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি)২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ‘এ’ ও ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। তিনটি শিফটে দুইটি ইউনিটের পরীক্ষা নেওয়া হয়। এবার এমসিকিউ ও লিখিত উভয় পদ্ধতিতে পরীক্ষা হয়েছে।

আজ সোমবার (২১ অক্টেবর) সকাল ৯টা থেকে বেলা ১১টা ৪৫ মিনিট পর্যন্ত ইউনিট-এ’র গ্রুপ-১, বেলা ১১টা ৪৫ থেকে দুপুর ১টা ৩০ পর্যন্ত ইউনিট-এ এর গ্রুপ-২ এরপর বিকেল ৩টা থেকে ৪টা ৪৫ পর্যন্ত ইউনিট-বি এর গ্রুপ-১ (বাণিজ্য) এবং ইউনিট-বি এর গ্রুপ-২ (অ-বাণিজ্য) ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

এবার তিনটি ইউনিটে ৪ হাজার ৭১৩টি আসনের বিপরীতে ৭৮ হাজার ৯০ জন ভর্তিচ্ছু পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন। এর মধ্যে এ ইউনিটে ভর্তিচ্ছু ৩১ হাজার ১২৯ জন, বি ইউনিটে ১৫ হাজার ৭৩২ জন এবং সি ইউনিটে ৩১ হাজার ২২৯ জন ভর্তিচ্ছু রয়েছেন।

এদিকে সকালে সাড়ে নয়টার দিকে পরীক্ষার হল পরিদর্শন শেষে উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান সাংবাদিকদের বলেন, কোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে কোনো প্রকার জালিয়াতি হয়নি। কেউ যাতে জালিয়াতি করতে না পারে সে বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সর্তক অবস্থানে ছিল।

সার্বিক পরিবেশ নিয়ে সন্তোষ অভিভাকরা:

পরীক্ষার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করছে অভিভাবকরা। ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নিয়েছে। পর্রীক্ষা চলাকালে শিক্ষার্থীদের নারী অভিভাবকদের জন্য শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে নারী ও পুরুষ উভয়ের জন্য কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তন উন্মুক্ত, ভর্তিচ্ছুদের সহযোগিতায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে ১৬টি হেল্প ডেস্কের ব্যবস্থা ও ছিল সার্বক্ষণিক মেডিকেল টিম। ক্যাম্পাসের বাইরের মেসগুলোতে কোনো অতিরিক্ত ভাড়া আদায় না করতে পারে সে বিষয়ে খুঁজ নিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর ছিল।

এছাড়া ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের জন্য থাকার রাত্রী যাপনের ব্যবস্থা করেছে প্রশাসন। নারী অভিভাকদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের পশ্চিম দিকের ছাত্রী জিমনেশিয়ামে এবং পুরুষ অভিভাবকদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারি ক্লাবে ব্যবস্থা করা হয়েছে।যেখানে গতকাল থেকে প্রায় তিন শতাধিক অভিভাবক রাত্রী যাপন করেছেন।

রবিবার রাতে ছাত্রী জিমনেশিয়ামে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জিমনেশিয়ামের দ্বিতীয় তলা কক্ষ ও নিচ তলায় মেঝেতে বেড সিট বিছানো অভিভাবকরা সেখানে অবস্থান করছেন। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের এ ধরনের আয়োজনে তারা সন্তুষ্ট।

যশোর থেকে মেয়েকে নিয়ে আসা কাকলি বেগম বলছিলেন, ভাবছিলাম অভিভাকদের তো মেয়েদের হলে থাকতে দেয় না, তাই গাছের তলায় বসে রাত কাটিয়ে দেব। কিন্তু এখানে এসে দেখি নারী অভিভাকদের জন্য থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের কাছে কৃতজ্ঞ।

উল্লেখ্য, আগামী ২২ অক্টোবর সি ইউনিটের পরীক্ষা মধ্যদিয়ে শেষ হবে এবারে ভতি পরীক্ষা।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ