রেল ধ্বংসের ষোলকলা পূর্ণ

প্রকাশিতঃ ১১:২৩ পূর্বাহ্ণ, রবি, ১৫ ডিসেম্বর ১৯

মাহবুব কবির মিলন :

প্রসঙ্গ ছিল স্ট্যান্ডিং যাত্রী। গত ১১ তারিখ রেল সভায় বলেছিলাম,

স্ট্যান্ডিং টিকেট দেয়া হয় এমন যে কোন ট্রেনে, যে কোন কোচে, যে কোন দিন, যে কোন মুহূর্তে অভিযান চালিয়ে দেখা হোক স্ট্যান্ডিং যাত্রীর মধ্যে কতজন বিনা টিকেটধারী এবং কতজন স্ট্যান্ডিং টিকেটধারী।

নিশ্চিত তা ৯০% বিনা টিকেটে, ১০% স্ট্যান্ডিং টিকেটধারী যাত্রী।

এই ১০% স্ট্যান্ডিং টিকেটধারী যাত্রীর আড়ালে ৯০% বিনে টিকেটে দাঁড়িয়ে বা বসে যাচ্ছে। ব্যবসা করছে এটেনডেন্ট সহ সবাই।

আয় বিবেচনায় রেল করে যাচ্ছে সম্পূর্ণ এক অনিয়ম। কিন্তু আয় বিবেচনায় মালামাল পরিবহণ খাতে রেলের কোন মাথাব্যথা নেই বলেই প্রতীয়মান হয়।

স্ট্যান্ডিং টিকেট বিক্রি করে সামান্য আয়ের বিনিময়ে যাত্রী কল্যাণে নেমে এসেছে এক অভিশাপ।

রেল থেকে প্রায় বলা হয়ে থাকে, আশেপাশের জেলা বা সাব আরবান এরিয়ায় যেদিন পরযাপ্ত ট্রেন চালু হবে (শর্ট ডিসটেন্সে), তখন স্ট্যান্ডিং টিকেট বন্ধ করে দেয়া হবে।

জনসংখ্যা বিবেচনায় পর্যাপ্ত শব্দটি’তে কামিয়াব হয়ে গেলে হয়ত আমাদের কেয়ামত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। তখন সব মানুষ উর্ধাকাশে ছোটা শুরু করলে হয়ত এই দেশে জনসংখ্যা কিছুটা কমে আসবে।

কোনদিনই যাত্রী চাহিদা আমরা এমন মেটাতে পারব না যে, কেউ দাঁড়িয়ে যাবার প্রয়োজন পড়বে না। আর বিনা টিকেটের ৯০% ছুপা রুস্তমের কথা বাদই দিলাম। লজ্জাহীন এই অংশটি শুধুমাত্র বদ খাসলতের কারণেই টিকেট ছাড়া ট্রেনে উঠে যায়।

টিকেট ছাড়া ট্রেনে উঠে বুক ফুলিয়ে বলে, “আমি অমুক জেলার, এমন খচ্চ** প্রজাতি গোটা সৌর জগতে পাওয়া যাবে না।

রেল নিজস্ব জনবল বাদ দিয়ে যখন বেতনহীন থার্ড পার্টি এটেনডেন্টের কাছে সঁপে দিল ট্রেন এবং আরএনবি নিরাপত্তার সাথে টিকেট চেকিং এর দায়িত্ব নিল, সেদিন থেকে ধ্বংসের ষোলকলা পূর্ণ হয়ে গেছে রেলের।

স্ট্যান্ডিং যাত্রী যায় এমন সব ইন্টারসিটি ট্রেনে যাত্রা সম্পূর্ণ বন্ধ করে দিয়েছি। কারণ যেদিন মাথা আর ঘাড়ের উপর যাত্রী ঝুলে থাকবে, পরের দিনই স্ট্যান্ডিং টিকেট সিস্টেম বন্ধের কাজটি শুরু করব। আমি জানি কি করে বন্ধ করতে হবে তা।

কিন্তু রেলের আয়ের স্বার্থেই আপাতত দূরে সরে আছি।

এমন অরাজকতা জগতে বিরল।

লেখক :


সদস্য, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। (ফেসবুক টাইম লাইন থেকে নেয়া)

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ