লক্ষ্মীপুরে ট্রাক খাদে পড়ে শ্রমিক নিহত ৩

প্রকাশিতঃ ১১:৪০ পূর্বাহ্ণ, বৃহঃ, ২ জানুয়ারি ২০


মো: ইউসুফ ,লক্ষ্মীপুর :
লক্ষ্মীপুর-ঢাকা মহাসড়কের পল্লী বিদ্যুৎ এলাকায় চাকা বিস্ফোরিত হয়ে পিকআপ ভ্যানটি রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে ৩ নির্মাণ শ্রমিক নিহত ও ১৫জন আহত হয়েছে।

আহতদের উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৫জনের অবস্থায় আশংকাজনক বলে জানিয়েছেন সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক।

বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) ভোর ৬টার দিকে উপজেলার মুক্তিগঞ্জ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলো সদর উপজেলার সমসেরাবাদ এলাকার নুরুল আমিনের ছেলে খোরশেদ আলম, টুমচর এলাকার পাটওয়ারীর ছেলে রফিক উল্যাহ ও আবিরনগর এলাকার নজির আহমদের ছেলে মফিজ উল্যাহ।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরীরহাট থেকে ১৮জন নির্মাণ শ্রমিক পিকআপ ভ্যানে করে কাজ করার জন্য চন্দ্রগঞ্জ বাজারে যাচ্ছিলেন। পিকআপটি পল্লী বিদ্যুৎ এলাকায় পৌঁছলে হঠাৎ গাড়ির সামনের চাকা বিস্ফোরিত হয়ে পিকআপ ভ্যানটি রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়।

খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ও পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নির্মাণ শ্রমিক খোরশেদ আলম, মফিজ উল্যা ও রফিক উল্যার মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এবং আহত ১৫জনকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এদের মধ্যে ৫জনের অবস্থায় আশংকাজনক। মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এ দিকে ঘটনার পর থেকে নিহতের পরিবারের মধ্যে চলছে শোকের মাতম। পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারীদের হারিয়ে নিঃস্ব নিহতের পরিবার।

লক্ষ্মীপুর ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা মো. ওয়াসি আজাদ জানান, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট তিন ঘন্টা অভিযান চালিয়ে নিহত তিনজন ও আহত ১৫জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অপরদিকে সদর থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. কাউছার আহমেদ জানান, তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে রাখা হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্তের পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন জানান, দুর্ঘটনায় আহতদের চিকিৎসা চলছে। এদের মধ্যে ৫জনের অবস্থায় আশংকাজনক।

সময় জার্নাল/আরইউটি/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ