সমাজ পরিবর্তনে বাবা-মা ও শিক্ষক সবচে বেশি ভূমিকা রাখেন : পলক

প্রকাশিতঃ ৮:০১ অপরাহ্ণ, রবি, ২৬ জানুয়ারি ২০

ইসাহাক আলী, নাটোর : তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, সমাজ পরিবর্তনে বাব-মা ও শিক্ষকের অবদান সবচে বেশি। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থার মূল উদ্দেশ্য জিপিএ ৫ অর্জন করা নয়, মানুষের মত মানুষ হওয়া। একজন সৎ, আদর্শবান, নৈতিকতা, বিবেক সম্পন্ন দেশপ্রেমী মানুষ দেশের সম্পদ রক্ষা করতে পারে, দেশের জন্য ভাল করতে পারে।

রোববার (২৬ জানুয়ারি) বিকালে সিংড়া কোর্ট মাঠে উপজেলা প্রশাসন ও শিক্ষা অধিদপ্তরের যৌথ আয়োজনে চলনবিল শিক্ষা উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে পুরোপুরি অবৈতনিক করার পরিকল্পনা করেছিলেন। তার মৃত্যুর পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১০০% শিক্ষা নিশ্চিতের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বছরের প্রথম দিনেই বই উৎসবের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বই তুলে দিচ্ছেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা না হলে আজ বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হতে পারত।

তিনি আরও বলেন, একসময় সিংড়ার চলনবিলের মানুষ বঞ্চিত, নির্যাতিত ছিল। কিন্তু বর্তমান সরকারের সুদৃষ্টির কারণে সিংড়ায় উন্নয়নের জোয়ার বইছে। প্রধানমন্ত্রীর কল্যাণে সিংড়ায় ২৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ, আইসিটি পার্ক, শেখ কামাল আইসিটি ইনকিউবেশন সেন্টার নির্মিত হচ্ছে।

পলক বলেন, সরকার বেকার সমস্যার সমস্যা দূর করতে পদক্ষেপ নিয়েছে। বর্তমানে দেশে শিল্প উদ্যোক্তা তৈরী ও শিল্প বিপ্লব ঘটাতে ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরিন বানুর সভাপতিত্বে এসময় অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মোঃ শাহরিয়াজ পিএএ, পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রমজান আলী আকন্দ প্রমূখ।

আলোচনা সভাশেষে অদম্য মেধাবী কৃতি শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের সম্মাননা, রত্নগর্ভা ও মরণোত্তর গুণীজন সম্মাননা দেওয়া হয়। পরে সেখানে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সময় জার্নাল-নাটোর-আরইউটি

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ