সিটি নির্বাচনে ৫০ হাজারের বেশি ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা

প্রকাশিতঃ ১:০৪ অপরাহ্ণ, বুধ, ২৯ জানুয়ারি ২০

নিউজ ডেস্ক: ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচন নির্বিঘ্ন করতে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) পক্ষ থেকে নেওয়া হচ্ছে নানা প্রস্তুতি। তবে আশঙ্কা থেকে নির্বাচনী দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করে নিতে উচ্চ মহলের মাধ্যমে তদবির করেছেন প্রিসাইডিং, সহকারী প্রিসাইডিং ও পোলিং কর্মকর্তারা।

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানিয়েছে, নির্বাচনে দুই সিটিতে ৫০ হাজার ৬৬০ জন ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করবেন। এর মধ্যে ২৪৬৮ জন প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ১৪ হাজার ৪৩৪ জন, পোলিং কর্মকর্তা ২৮ হাজার ৮৬৮ জন। এর বাইরে দুই সিটিতে অস্থায়ী ভোটকক্ষ ১৬৩০টি। এ ক্ষেত্রে আরও এক হাজার ৬৩০ জন সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, তিন হাজার ২৬০ জন পোলিং কর্মকর্তা থাকছেন। প্রতি ভোটকেন্দ্রে একজন প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, প্রতিকক্ষে একজন সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা এবং প্রতি কক্ষে দু’জন পোলিং কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করবেন।

তবে দুই সিটি নির্বাচনে দায়িত্ব পালন নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন ভোট গ্রহণ কর্মকর্তারা। র‌্যাব, বিজিবিসহ বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন থাকার পরও ভোটের দিন নিরাপত্তা নিয়ে আশ্বস্ত হতে পারছেন না ইসির ভোট গ্রহণ কর্মকর্তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দুই রিটার্নিং কর্মকর্তা জানান, আশঙ্কা থেকে নির্বাচনী দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করে নিতে উচ্চ মহলের মাধ্যমে তদবির করেছেন প্রিসাইডিং, সহকারী প্রিসাইডিং ও পোলিং কর্মকর্তারা। কেউ ভোটের দিন দায়িত্ব পালন করতে চাইছেন না। বিষয়টি সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়েছে রিটার্নিং ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাদের।

আগামী ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে নির্বাচনে সম্পূর্ণ ভোটগ্রহণ হবে ইভিএমে। এবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ৩০ লাখ ৯ হাজার এবং দক্ষিণ সিটিতে ২৪ লাখ ৫২ হাজার ভোটার রয়েছেন।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ