সুষম খাদ্য (ব্যালেন্স ডায়েট)

প্রকাশিতঃ ৭:৫৫ অপরাহ্ণ, বুধ, ১১ ডিসেম্বর ১৯

ডা. তাইফুর রহমান :

পেট মোটা সুমনকে দেখে স্বাস্থ্যবান ভাবলে আপনি মারাত্মক ভুল করে ফেললেন।

সারাক্ষণ এটা সেটা রোগ লেগেই থাকে। এই বয়সেই এক শক্তিহীন বালক। দৌড় দিতে গেলেই হাঁপিয়ে ওঠে। সিঁড়ি বেয়ে পাঁচ তলায় উঠা তার জন্য এভারেস্ট বিজয়ের মতো। কেন এমন হলো?

সে-তো ধনাঢ্য বাবার একমাত্র পুত্রধন, নন্দদুলাল!

অতি আদরই তার জন্য কাল হয়ে দাড়িয়েছে। ফাস্টফুড আর জাঙ্কফুড তার নিত্যদিনের রুটিন। শাকসবজি আর মাছ তার দু’চোখের বিষ।

অল্প বয়সেই সে এখন ডায়াবেটিস নিয়ে ধুকছে ।

তার নাই ব্যালেন্সড লাইফ, নাই ব্যালেন্সড ডায়েটের অভ্যাস।

কি সেই ব্যালেন্সড ডায়েট?

অতি মোটা মানে যেমন স্বাস্থ্যবান নয়, দামী দামী খাবার মানেও তেমন ব্যালেন্স ডায়েট নয়।

একটা খাবারে থাকবে সব ধরনের খাদ্য উপাদান, পর্যাপ্ত পরিমাণে। কোন উপাদানেরই বাহুল্য থাকবে না, যেটা যতটুকু দরকার ততটুকুই থাকবে, যার যতটুকু ক্যালরি দরকার তার জন্য ততটুকুই থাকবে। এটাই তার জন্য ব্যালেন্সড ডায়েট।

ব্যালেন্স ডায়েট হবে ব্যাক্তি বিশেষের জন্য আলাদা আলাদা।

একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের প্রত্যহ মুটামুটি প্রায় ২৫০০-৩০০০ কিলো ক্যালরি শক্তির দরকার।

একজন কৃষক, কুলি, মজুর, অফিসের বস সবার কাজ এক না, পরিশ্রম সমান না, চাহিদা সমান না, তাই খাদ্যের চাহিদাও এক হতে পারে না। একজন বৃদ্ধ ও একজন যুবকের চাহিদাও সমান নয়, শক্তি খরচ করার ক্ষমতাও সমান নয়। সুতরাং দুইয়ের জন্য খাদ্য তালিকাও এক হতে পারে না।

# খাদ্যের উপাদান ৬টি, শর্করা, আমিষ, স্নেহ, ভিটামিন, খনিজ লবন এবং পানি।

# শর্করা বিভিন্ন প্রকার :-

* শ্বেতসার বা স্টার্চ :- ধান, গম, ভুট্টা, আলু, কচু ও দানা শস্য।

* গ্লুকোজ :- আঙুর, অাপেল, গাজর, খেজুর।

* ফ্রুকটোজ (fruit sugar):- আম, পেঁপে, কলা, কমলালেবু।

* সুক্রোজ :- আখের রস, চিনি, গুড়, মিসরি,

* সেলুলোজ :- বেল, আম, কলা, তরমুজ, বাদাম, শুকনা ফল ও শাক সবজিতে

* পশু ও পাখি জাতীয় প্রাণীর যকৃৎ ও মাংসে গ্লাইকোজেন শর্করাটি পাওয়া যায়।

# প্রতি কিলো ওজনে ৪-৬ গ্রাম শর্করা গ্রহণ করা দরকার।

# আমিষ = মাছ, মাংস মানেই আমিষ। প্রতি কিলো গ্রাম ওজনে প্রতিদিন ১ গ্রাম আমিষ খাওয়া দরকার।

স্নেহ জাতীয় খাবার মানেই তেল, চর্বি।

# চর্বি হচ্ছে সম্পৃক্ত ফ্যাটি এসিড।

# তেল হচ্ছে অসম্পৃক্ত ফ্যাটি এসিড।

# প্রতিকিলো ওজনে প্রতিদিন প্রায় ১.৫ গ্রাম স্নেহজাতীয় খাদ্য গ্রহন করা দরকার।

# প্রতিদিন ১০-৩০ মিলিগ্রাম ভিটামিন ‘E’ যুক্ত খাবার গ্রহণ করা উচিত।

# ভিটামিন বি কমপ্লেক্সে ১২টি বি ভিটামিন থাকে। তার সবগুলোই শরীরের জন্য আবশ্যকীয়।

# দেহে খনিজ লবণের মধ্যে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি।

# পূর্ণবয়স্ক মানুষের প্রতিদিন পানি প্রয়োজন ২-৩ লিটার।

# শরীরের পানি ১০% কমে গেলে সংজ্ঞা লোপ পায়, মৃত্যুও হতে পারে।

# অতিরিক্ত পানি পান করলেও ওয়াটার ইনটক্সিকেশন হয়ে মারা যেতে পারেন।

# মানব দেহের বৃদ্ধি ঘটে -মোটামুটি ২৪ বছর বয়স পর্যন্ত।

# রাফেজ বা আঁশ মূলত: সেলুলোজ নির্মিত উদ্ভিদ কোষ প্রাচীর। প্রতিদিন ২০-৩০ গ্রাম আঁশযুক্ত খাবার গ্রহণ করা উচিত।

# ফাষ্ট ফুড বা জাঙ্ক ফড হচ্ছে মুখোরচক অপুষ্টিকর খাদ্য। বর্জনই পুষ্টিকর খাদ্যের শর্ত।

সব হিসাবের পরেও হিসাব থাকে!

গেন্দু মিয়া, হতদরিদ্র প্রান্তিক কৃষক, কোথায় পাবে টাকা, কিভাবে খাবে ব্যালেন্স ডায়েট?

তার কোন ডায়েটেসিয়ান নাই। ডায়েট চার্ট নাই। ক্যালরি হিসাব করে দেয়ার ডাক্তার নাই। টাকা নাই। খাওয়ার ব্যাপারে পর্যাপ্ত জ্ঞান নাই। সে বুঝে শুধু ক্ষুধা। উথাল-পাতাল করা ক্ষুধার জ্বালায় কাঁদা মাখা শরীর নিয়েই জমি থেকে দৌড়ে যায় বাড়ি, পেডে ভুখ লাগছে ভাত দে বলে বসে পড়ে খেতে।

এক বাটি পান্তা ভাত, একটা কাঁচা মরিচ, এক কুঁচি পেঁয়াজ আর একটু লবনই যে তার বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বন, ব্যালেন্স ডায়েট। এটা খেয়ে খেয়েই তিনি সত্তুর বছরের শক্ত সমর্থ যুবক!!

তিনি যে নিজের আঙ্গিনায় ফলানো বিষ মূক্ত সবজি খান। বুড়ো দাঁতে কচকচ করে নিজের গাছের পেয়ারা খান। নিজের পালিত গাভীর দুধের সাথে পুকুরপাড়ের কলা মেখে জিহ্বায় তাড়িয়ে তাড়িয়ে খান। পুকুরের মাছেই চলে তার সারাটা বছর।

তিনি যে লাল আমন চালের মাড় খান সেটাতেও আছে গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন বি১ ও বি২। যেই ভিটামিনটার জন্য আপনাকে কত ধরনের ডায়েট চার্ট মেইনটেইন করতে হয়।

সারাদিন মাঠে মাঠে রোদ মেখে তিনি যেই ভিটামিন -ডি পান, সেই ভিটামিন -ডি পাওয়ার জন্য আমার হাপিত্যেশ করি।

হ্যাঁ। বিদেশি ফল রামবুটান, পার্সিমন কিংবা স্ট্রবেরি খাওয়ার দরকার নাই। দেশি ফল খান। শুধু নিশ্চিত করুন ছয়টি খাদ্য উপাদান।

শর্করা, আমিষ ও স্নেহজাতীয় খাদ্যের অনুপাত ঠিক রাখুন। প্রতিদিনের খাদ্যে থাকবে পর্যাপ্ত পানি, শাকসবজি ও ফাইবার।
সাথে—-
সঠিক জীবনবোধ, একটিভ লাইফ আর সতেজ চিন্তা-চেতনা ধারণ করুন—
তাহলেই শরীর থাকবে সুস্থ, সুঠাম।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ