১৮ বছরেও উৎপাদনে যেতে পারেনি ঠাকুরগাঁও রেশম কারখানা !

প্রকাশিতঃ ৩:৫১ অপরাহ্ণ, শুক্র, ২০ মার্চ ২০

হিমেল তালুকদার, ঠাকুরগাঁও : দেশে সরকারিভাবে পরিচালিত দুটি রেশম কারখানার মধ্যে একটি রাজশাহী রেশম কারখানা সম্প্রতি চালু হলেও ১৮ বছর ধরে বন্ধ হয়ে পড়ে আছে ঠাকুরগাঁও রেশম কারখানাটি। ব্যাপক সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও একের পর এক সিদ্ধান্ত গৃহীত হওয়ার পরেও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হচ্ছে না। কবে এটি চালু হবে ? নাকি এভাবেই মুখ থুবড়ে পড়ে থাকবে ? প্রশ্নটি এখন ঠাকুরগাঁওয়ের সর্ব সাধারণের।

রেশম বোর্ডের তথ্য মতে, ১৯৭৭-৭৮ সালে আরডিআরএস বাংলাদেশ নামে একটি বেসরকারী সংস্থা ঠাকুরগাঁও শহরের পাশে দুরামারি নামক জায়গায় (বর্তমানে বিসিক শিল্পনগরী) এই রেশম কারখানাটি স্থাপন করে। পরবর্তীতে লাভজনক প্রতিষ্ঠান হওয়ায় ১৯৮১ সালে কারখানাটি রেশম বোর্ডের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এরপর কারখানাটি গত ২৬ বছরে দুর্বল ব্যবস্থাপনার কারণে পর্যায়ক্রমে ৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা লোকসান করে। এ লোকসানের অজুহাতে ২০০১ সালে কারখনাটি বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ।

ক্রমাগত লোকসানের অজুহাতে ঠাকুরগাঁওয়ের রেশম কারখানাটি ২০০১ সালে বন্ধ ঘোষণা করার পর আর চালু করা হয়নি।

এতে কারখানাটির ১৩৪ জন শ্রমিক ও প্রায় ১০ হাজার রেশম চাষী বেকার হয়ে কষ্টে দিনাতিপাত করছেন। তাদের অনেকেই বাধ্য হয়ে অন্য পেশায় নিজেদের সম্পৃক্ত করলেও কারখানাটি চালুর অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন। ওই সময় কয়েক কোটি টাকা ব্যয়ে কারখানাটি আধুনিকায়ন, যন্ত্রপাতি পুনরায় স্থাপন ও সম্প্রসারণ (বিএমআরই) করার পরও কারখানাটি দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় এখন কোটি কোটি টাকার মূল্যবান যন্ত্রপাতি মরিচা ধরে নষ্ট হচ্ছে।

চাষীরা জানান, অন্য ফসল ফলিয়ে অনেক কষ্টে জীবনযাপন করতে হয়। কারখানাটি চালু হলে তারা আবারও একটু স্বচ্ছলতার মুখ দেখবেন বলে আশা করেন তিনি।

কারখানাটি বন্ধ হওয়ার কারণে আমাদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা থেমে রয়েছে। জানি না কবে আবারও আগের মতো একটু শান্তিতে জীবনযাপন করব। চালু হলে আমার মতো অনেক গরিবের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে।

এবিষয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক নুর কুতুবুল ইসলাম জানান, ইতোমধ্যে কারখানাটি চালু করার ব্যাপারে জেলার সকল মহল মতামত দিয়েছেন। আশাকরি খুব দ্রুত রেশম কারখানাটি চালুর ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেবেন।

ঠাকুরগাঁওয়ের এ রেশম কারখানাটি চালু হলে অসংখ্য মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে বলে মনে করেন এলাকাবাসী।

সময় জার্নাল/

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ