৫৪ বছর সন্তানহীন থাকার পর যমজ সন্তানের মা হলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধা

প্রকাশিতঃ ২:০৪ অপরাহ্ণ, শুক্র, ৬ সেপ্টেম্বর ১৯

২০১৬ সালে ৭০ বছর বয়সে সন্তান জন্ম দিয়ে বিশ্ব রেকর্ড করেছিলেন ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের এক দম্পতি। সবচেয়ে বেশি বয়সে সন্তানের মা হওয়ার রেকর্ডে অর্ন্তভূক্তি হয়েছিলেন দলজিন্দর কউর নামের ওই বৃদ্ধা।

তবে এবার সে রেকর্ডকে ভেঙ্গে দিলেন আরেক ভারতীয় দম্পতি। ৭৪ বছর বয়সে সন্তানের জন্ম দিলেন তারা। তাও কিনা যমজ সন্তান!

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার অন্ধ্রপ্রদেশের গুন্টুর নামক এলাকার অহল্যা নার্সিং হোমে যমজ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন ৭৪ বছর বয়স্কা বৃদ্ধা মাঙ্গায়াম্মা। তিনি অন্ধ্রপ্রদেশের পূর্ব গোদাবরী জেলার নেলাপার্তিপাদুর বাসিন্দা।

চার চিকিৎসকের একটি দল মাঙ্গায়াম্মারের সিজারিয়ান অপারেশন করেন। মা ও দুই সন্তান তিনজনই ভালো আছেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক দলের প্রধান ডা. এস উমাশঙ্কর।

ডা. এস উমাশঙ্কর বলেন, বৃহস্পতিবার আমাদের হাসপাতালে এ বিরল ঘটনা ঘটে। এটা মেডিকেল মিরাকেল। ইতিহাসও বটে। কেননা সবচেয়ে বেশি বয়সে সন্তানের জন্ম দেয়ার ঘটনা এটাই।

আইভিএফ পদ্ধতিতে মাঙ্গায়াম্মা গর্ভবতী হয়েছিলেন বলে জানান তিনি। গত বছর অহল্যা নার্সিং হোমের আইভিএফ বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে রাজি হয়ে মাঙ্গায়াম্মা ও তার স্বামী ওয়াই রাজা রাও এ পদক্ষেপ হাতে নেন।

গত ৯ মাস ধরে নিয়মিত মাঙ্গায়াম্মার স্বাস্থ্যের দিকে নজর রেখেছিলেন ১০ জন চিকিৎসক। নিয়মিত চেকাপ করা হচ্ছিল তার। প্রতিটি পদক্ষেপই চিকিৎসকের পরামর্শে নিয়েছেন মাঙ্গায়াম্মা।

ডা. এস উমাশঙ্কর বলেন, ৫৪ বছর সন্তানহীন দাম্পত্য কাটিয়েছেন মাঙ্গায়াম্মা। আর ৭৪ বছর বয়সে এসে দুই সন্তানের জননী হলেন। বিশ্ব রেকর্ড করলেন। এটা মিরাকল নয়তো কি?

এদিকে মা হতে পেরে আবেগে ভাষাহীন মাঙ্গায়াম্মা। তার স্বামী রাজা রাও ও অন্যান্য আত্মীয়রা এলাকায় ইতিমধ্যে মিষ্টি বিতরণ করেছেন।

মা ও তার সন্তানরা ভালো আছেন জানিয়ে অহল্যা নার্সিং হোমের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আগামী কয়েকদিন পর্যবেক্ষণে রাখা হবে তাদের। এর পর দুই সন্তানকে নিয়ে বাড়ি ফিরতে পারবেন মাঙ্গায়াম্মা।

লকডাউন পরিস্থিতিতে পাঠকদের অবস্থা, সমস্যায় পড়া মানুষদের কথা সরকার, প্রশাসন এবং সকল খবরাখবর আমাদের সব পাঠকের সামনে তুলে ধরতে আমরা মনোনীত লেখাগুলি প্রকাশ করছি। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের পাঠাতে ক্লিক করুন

স্থান, তারিখ ও কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই লিখে পাঠাবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত জানানঃ